jhc-2019-jul-v-3-n-2-editorial

Editorial

Pathology Course in MBBS Curriculum

*Rahman MZ

 *Dr. Mohammad Zillur Rahman, Professor and Head, Department of Pathology, Chattogram Medical College, Chattogram. drzillur@gmail.com

Medical Education in Bangladesh is run by a curriculum introduced by the regulatory authority Bangladesh Medical and Dental Council (BM&DC). Now we are continuing our MBBS curriculum 2012. This new curriculum was introduced and published by BM&DC, which was funded and supported by WHO. A national body was appointed to formulate this curriculum. But the beginning of medical education was not that much structured as we are getting now a days.

After liberation in 1971, MBBS course had been running as it was in the then Pakistan period. At that time, Pathology was taught for 3 years. In 3rd year and 4th year, general Pathology, hematology and clinical pathology were included and ended with 3rd Professional examination. Systemic pathology was called as Special Pathology and was taught in 5th year course. It was also a full paper examination in final professional examination.

It was first in December 1982, when Professor M A Mannan, the then President of Bangladesh Medical and Dental Council, offered a 12 page curriculum for MBBS students. Prof Mannan was a Professor of Neurology at IPGM&R. The President of BM&DC was his additional post. At the introduction of the curriculum, he wrote “the quality of medical education in the country requires to be supervised and constantly monitored by BM&DC to ensure adequate standard and appropriateness of such education in meeting the health needs of the population to be served for achieving the national goal of health for all by 2000 A.D.” The curriculum was made through sub-committees at all medical colleges by the experienced teachers. It was also mentioned that the need based and country oriented curriculum have been suggested.

But, in this curriculum, the course of Pathology was shrunken and adopted within two years instead of previous three years course. On the other hand, at that time Pathology and Microbiology was included in one subject. Though the course was of two years, students actually couldn’t give priority to Pathology because of upcoming forensic medicine and Pharmacology examination in 2nd professional examination. That means most of the students though attending the pathology classes for avoiding non collegiate status, usually didn’t go through pathology books.

Later, in 1988, the curriculum was revised. This time, Professor M A Wahab, led the committee through Center for medical education. A complete book volume of 167 pages were published. This time the curriculum was more structured but the courses content of Pathology remains as before. But in 1988 curriculum, item card was introduced and made mandatory to complete each and every items of the card, followed by a card completion examination. This had somewhat improved the situation.

 In 2002 curriculum, a revolutionary decision was taken. 2nd professional examination after completing 3rd year has been merged with 4th year completion. This time, pathology was separated from microbiology. Thus reducing one professional examination, students had to study all five subjects; i.e. Pathology, Microbiology, Pharmacology, Forensic Medicine and community medicine. So, here the students became more regular in Pathology learning in comparison to the era of previous curriculum. As Microbiology became separate examining subject, total 5 subjects were included in 2nd professional examination. Though the course was modified into 3 phases, the phase-2 was kept two years long, which was adequate for Pathology learning. On the other hand, the examination schedule was reprogrammed 6 monthly instead of previous 4 monthly schedule. This made the students comfortable to attend all the classes and to study all five subjects equally for two years. But the problem the students faced was the examination phobia of appearing in 5 subjects at a time. Not only that, there was a remarkable reduction in rate of passing the examination too.

To consider these problems, BM&DC again formulated sub-committees to rearrange the curriculum. These committees finally formulated a curriculum known as 2012 curriculum. This new curriculum again turned to 4 professional examination system.  But, this time, forensic medicine and community medicine are placed in 2nd phase. Pathology, Microbiology and Pharmacology are kept in 3rd phase. Moreover, in this one year course time for pathology, Microbiology and pharmacology, students get only 6 to 8 months time, due to different kinds of vacations and preparatory leaves. So, ultimately, the 3 years course of Pathology converted to 1 year course, that should be taught within 6 to 8 months time. This is very alarming that students are getting 2 to 3 months time per subject in the classes.

Pathology plays the pivotal role in learning medicine. Inadequate knowledge in Pathology cannot make a good clinician. Moreover, Pathology should be read in both 2nd and 3rd phases. A group of the pathologist professionals involved in teaching pathology think that pathology should be taught in undergraduate level as Term-1 with general pathology in 3rd year and term-2 with systemic pathology in the 4th year. The professional examination should be held at the end of the 4th year.

It is a matter of concern that medical graduates who goes abroad for higher education requires academic transcript from Bangladesh.The total working hours of pathology in our country, in comparison to different countries in SAARC , is lower than others. For this reason, equal distribution of pathology study hours with foreign curriculum are required.

On the other-hand, in previous curriculum of postgraduate medical education, pathology was taught in Part-1 and genetics in part-2 of the course. Now a days, residency program is adopted and these topics are no more included as a separate subject. So, there is no scope to fill in the gaps of knowledge regarding pathology which is needed as a must to become a better clinicians. That is why, this is very important to learn pathology with proper care in undergraduate course as a backbone of medical science.

So, it can be proposed that general pathology and hematopathology to be included in 2nd phase and Pathology paper-1 examination in 2nd professional examination, followed by systemic pathology including clinical and chemical pathology and forensic pathology in 3rd phase; as well as Pathology paper-2 examination in the 3rd professional examination. It will be of great improvement in the learning process as general pathology knowledge is very essential to learn forensic medicine and community medicine, which are taught in 2nd phase.

MBBS is the basic course for a medical graduate. If adequate knowledge, skill and attitude is not developed through this course and curriculum, medical graduates will fail to diagnose and manage patients efficiently as well as their weak base of pathology knowledge will make them facing difficulties in postgraduate course also. So, the curriculum 2012 needs an urgent review and pathology should get proper attention in the upcoming curriculum.

প্যাথলজি কারিকুলাম বিষয়ক কমিটির সভার কার্যবিবরণীঃ

প্যাথলজি কারিকুলাম বিষয়ক কমিটির সভার কার্যবিবরণীঃ

বাংলাদেশ একাডেমী অব প্যাথলজি আয়োজিত এমবিবিএস কোর্সের প্যাথলজি কারিকুলাম বিষয়ক সভা স্যার সলিমুল্লাহ মেডিকেল কলেজের প্যাথলজি বিভাগে গত ২৭/০৪/২০১৯ তারিখে পূর্বনির্ধারিত সময়ে অনুষ্ঠিত হয়। সভায় সভাপতিত্ব করেন কারিকুলাম বিষয়ক কমিটির সভাপতি অধ্যাপক মোঃ নাসিমুল ইসলাম।

সম্মানিত সদস্যমন্ডলীর মধ্যে সভায় উপস্থিত ছিলেন সর্বজনাব অধ্যাপক মোঃ ফজলুর রহমান, অধ্যাপক এনামুল কবির, অধ্যাপক শামীম ফারুক, ডাঃ কাজী নিশাত আরা বেগম, ডাঃ সায়েকা হাবিব, ডাঃ শাহনাজ বেগম প্রমুখ। এছাড়া ছিলেন প্যাথলজি বিভাগের অধ্যাপক হারুন অর রশিদ।

সকল সম্মানিত সদস্যকে শুভেচ্ছা ও স্বাগত জানিয়ে অধ্যাপক নাসিমুল ইসলাম বিএমডিসি এবং উপমহাদেশীয় অন্যান্য দেশের মেডিকেল কারিকুলামের তুলনামূলক একটি সংক্ষিপ্ত মাল্টিমিডিয়া প্রদর্শনী উপস্থাপন করে বিষয়ের উপর আলোচনার সূত্রপাত করেন।

সভায় আলোচনার মাধ্যমে নিম্নলিখিত সিদ্ধাম্ত গৃহীত হয়ঃ

১। বর্তমান এমবিবিএস কারিকুলামে যেহেতু দ্বিতীয় ফেজে ক্লিনিক্যাল ক্লাসসমুহ শুরু হয়ে যায়, প্যাথলজির বেসিক ধারণা না থাকায় ক্লিনিক্যাল বিষয় শিক্ষার্থীদের বুঝতে অসুবিধা হয়। কলেজের ক্লিনিক্যাল ফ্যাকাল্টিও শিক্ষাদানে জটিলতার সম্মুখীন হন। এ ব্যাপারে বিশেষতঃ ক্লিনিক্যাল শিক্ষকদের দাবী প্যাথলজি বিষয়টি দ্বিতীয় ফেজ থেকে শুরু করা হোক।

এর সমাধানে সভার প্রস্তাব হল,

– বর্তমান কারিকুলাম কিছুটা পরিবর্তন করে দ্বিতীয় ফেজে ফরেনসিক মেডিসিনের সঙ্গে কমিউনিটি মেডিসিন এর পরিবর্তে ফার্মাকোলজি থাকবে, সাথে প্যাথলজির ক্লাসের অফিসিয়াল অনুমতি থাকবে- যেখানে জেনারেল প্যাথলজি পড়ানো হবে এবং আইটেম ও টার্ম পরীক্ষা নেয়ার সুযোগ থাকবে।

– তৃতীয় ফেজে প্যাথলজির বাকি অংশের লেকচার, টিউটোরিয়াল ও প্র্যাকটিক্যাল ক্লাসশেষে ২য় টার্ম পরীক্ষা থাকবে।

– ২য় টার্ম পরীক্ষার পর তৃতীয় ফেজে মার্চের শেষ সপ্তাহ থেকে ৩ সপ্তাহ প্যাথলজি, মাইক্রোবায়লজি, এবং কমুনিটি মেডিসিন বিষয়ে ব্লক পোস্টিং এর ব্যবস্থা করা যেতে পারে, যাতে ছোট গ্রুপে রিভিশন ক্লাসসহ হাতে-কলমে প্র্যাকটিক্যাল শিক্ষাদান করা সম্ভব হবে।

২। সভায় একটি বিকল্প প্রস্তাব আসে, যা হল দ্বিতীয় ফেজ এ প্যাথলজির সাথে ২য় একটিমাত্র বিষয় যেমন- মাইক্রোবায়লজি বা ফার্মাকোলজি রাখা। এতে প্যাথলজির ক্লাসের জন্য পর্যাপ্ত সময় পাওয়া যাবে। এ ক্ষেত্রে প্যাথলজি সহ ২টি বিষয়ের উপর ২য় বৃত্তিমূলক পরীক্ষা অনুষ্ঠিত হবে। তবে কমিটি এটিকে মন্দের ভাল (2nd best option) আখ্যা দিয়ে ১ম প্রস্তাবের উপর গুরুত্ব আরোপ করে।

৩। কমিটির উপরোক্ত সিদ্ধান্ত সম্পর্কে Questionnaire এর মাধ্যমে প্যাথলজি আন্ডারগ্রাজুয়েট কোর্সের সকল শিক্ষকের মতামত অচিরেই সংগ্রহ করা হবে।

৪। একটি সুবিধাজনক সময়ে বিএসএমএমইউ বা ঢাকা মেডিকেল কলেজে প্যাথলজি কারিকুলাম আপডেট সংক্রান্ত অংশীজনের (Stakeholder) ওয়ার্কশপের আয়োজন করা হবে।

আলোচনা শেষে সভায় অংশগ্রহণকারী সম্মানিত সদস্যমন্ডলীকে ধন্যবাদ জানিয়ে চা-চক্রে আপ্যায়নের মাধ্যমে সভাপতি সভার সমাপ্তি ঘোষণা করেন।

অবগতির জন্য প্রেরণঃ বাংলাদেশ একাডেমী অব প্যাথলজির সকল সম্মানিত সদস্য।

Participant list 17

4th National Convention

Bangladesh Academy of Pathology

Participants List No 17(Dyanamic)

1. TASNIM ISRAT
MD
ASSTT PROF
CUMILLA MEDICAL COLLEGE

2. Dr. Md. Ashraful Alam

Associate Professor

Department of Pathology

Rangpur Medical College

 

Added by

Dr. Nurul Kabir

Meeting of EC on 2 March 2019

বাংলাদেশ একাডেমী অব প্যাথলজি (বিএপি)-এর ৪র্থ ন্যাশনাল কনভেনশন, ২৭-২৯ মার্চ ২০১৯-এর প্রস্তুতিমূলক মিটিং চলছে।
২/৩/১৯ ইং

Notices

সুধী,
মেডিকেল শিক্ষায় কারিকুলাম একটি অপরিহার্য ভুমিকা পালন করে থাকে। একটি সুসংবদ্ধ, নীড বেইজ্ড কারিকুলাম জনকল্যাণমুখী মেডিক্যাল প্রফেশনালস তৈরী করার ক্ষেত্রে অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ। এজন্য প্রয়োজনের দিকে লক্ষ্য রেখে মেডিক্যাল কারিকুলামকে পরিবর্ধন, পরিমার্জন করে সময়োপযোগী করা বিশেষভাবে জরুরী।

বর্তমান কারিকুলামে বিভিন্ন সাবজেক্টের সমন্বয়ের ক্ষেত্রে কিছু অসুবিধা পরিলক্ষিত হচ্ছে। বিশেষতঃ প্যাথলজি শিক্ষার পর্যায় নির্ধারণ এবং এর ব্যাপ্তি নিয়ে সংশ্লিষ্ট মহলে নানামত দেখা দিয়েছে।

বাংলাদেশ একাডেমি অব প্যাথলজি এব্যাপারে অংশীজনের মতের ভিত্তিতে একটি ঐক্যমত্য গঠনের লক্ষ্যে ’প্যাথলজি বিষয়ক কারিকুলাম আপডেট এবং অংশীজনের মতামত’ শীর্ষক ওয়ার্কশপের আয়োজন করতে যাচ্ছে।

এই লক্ষ্যে প্রাক-ওয়ার্কশপ প্রস্তুতিমূলক আলোচনা সভায় আপনাকে উপস্থিত থাকার জন্য একান্ত অনুরোধ করা হল।

সভার সম্মানিত সদস্যবৃন্দঃ

অধ্যাপক আবদুল মান্নান শিকদার
অধ্যাপক মোঃ ফজলুর রহমান
অধ্যাপক আবু উবায়েদ মোঃ মোহসিন
অধ্যাপক কানিজ রসুল
অধ্যাপক ফারুক আহমেদ
অধ্যাপক গোলাম মোস্তফা
অধ্যাপক পরিতোষ কুমার ঘোষ
অধ্যাপক এনামুল কবির
অধ্যাপক শামীমা ফেরদৌসি
ডাঃ শাহেদ আলী জিন্নাহ
ডাঃ শামীম ফারুক টিটু
ডাঃ সায়েকা হাবিব
ডাঃ শাহনাজ বেগম

অধ্যাপক রেজাউল করিম দেওয়ান- সদস্য সচিব

তারিখঃ ২৭/০৪/২০১৯, শনিবার, সময়ঃ সকাল ১০-০০ টা
স্থানঃ প্যাথলজি বিভাগ, স্যার সলিমুল্লাহ মেডিক্যাল কলেজ

ধন্যবাদান্তে
অধ্যাপক মোঃ নাসিমুল ইসলাম
সভাপতি, কারিকুলাম বিষয়ক কমিটি

সায়েন্টিফিক সেক্রেটারি, বাংলাদেশ একাডেমি অব প্যাথলজি।

EC Meeting on Feb 19

বাংলাদেশ একাডেমী অব প্যাথলজি (বিএপি)-এর বার্ষিক সম্মেলন হবে মার্চ-এর ২৭,২৮ ও ২৯ তারিখ। তার প্রস্তুতিমুলক মিটিং চলছে।
৯/২/২০১৯ ইং