প্যাথলজি কারিকুলাম বিষয়ক কমিটির সভার কার্যবিবরণীঃ

প্যাথলজি কারিকুলাম বিষয়ক কমিটির সভার কার্যবিবরণীঃ

বাংলাদেশ একাডেমী অব প্যাথলজি আয়োজিত এমবিবিএস কোর্সের প্যাথলজি কারিকুলাম বিষয়ক সভা স্যার সলিমুল্লাহ মেডিকেল কলেজের প্যাথলজি বিভাগে গত ২৭/০৪/২০১৯ তারিখে পূর্বনির্ধারিত সময়ে অনুষ্ঠিত হয়। সভায় সভাপতিত্ব করেন কারিকুলাম বিষয়ক কমিটির সভাপতি অধ্যাপক মোঃ নাসিমুল ইসলাম।

সম্মানিত সদস্যমন্ডলীর মধ্যে সভায় উপস্থিত ছিলেন সর্বজনাব অধ্যাপক মোঃ ফজলুর রহমান, অধ্যাপক এনামুল কবির, অধ্যাপক শামীম ফারুক, ডাঃ কাজী নিশাত আরা বেগম, ডাঃ সায়েকা হাবিব, ডাঃ শাহনাজ বেগম প্রমুখ। এছাড়া ছিলেন প্যাথলজি বিভাগের অধ্যাপক হারুন অর রশিদ।

সকল সম্মানিত সদস্যকে শুভেচ্ছা ও স্বাগত জানিয়ে অধ্যাপক নাসিমুল ইসলাম বিএমডিসি এবং উপমহাদেশীয় অন্যান্য দেশের মেডিকেল কারিকুলামের তুলনামূলক একটি সংক্ষিপ্ত মাল্টিমিডিয়া প্রদর্শনী উপস্থাপন করে বিষয়ের উপর আলোচনার সূত্রপাত করেন।

সভায় আলোচনার মাধ্যমে নিম্নলিখিত সিদ্ধাম্ত গৃহীত হয়ঃ

১। বর্তমান এমবিবিএস কারিকুলামে যেহেতু দ্বিতীয় ফেজে ক্লিনিক্যাল ক্লাসসমুহ শুরু হয়ে যায়, প্যাথলজির বেসিক ধারণা না থাকায় ক্লিনিক্যাল বিষয় শিক্ষার্থীদের বুঝতে অসুবিধা হয়। কলেজের ক্লিনিক্যাল ফ্যাকাল্টিও শিক্ষাদানে জটিলতার সম্মুখীন হন। এ ব্যাপারে বিশেষতঃ ক্লিনিক্যাল শিক্ষকদের দাবী প্যাথলজি বিষয়টি দ্বিতীয় ফেজ থেকে শুরু করা হোক।

এর সমাধানে সভার প্রস্তাব হল,

– বর্তমান কারিকুলাম কিছুটা পরিবর্তন করে দ্বিতীয় ফেজে ফরেনসিক মেডিসিনের সঙ্গে কমিউনিটি মেডিসিন এর পরিবর্তে ফার্মাকোলজি থাকবে, সাথে প্যাথলজির ক্লাসের অফিসিয়াল অনুমতি থাকবে- যেখানে জেনারেল প্যাথলজি পড়ানো হবে এবং আইটেম ও টার্ম পরীক্ষা নেয়ার সুযোগ থাকবে।

– তৃতীয় ফেজে প্যাথলজির বাকি অংশের লেকচার, টিউটোরিয়াল ও প্র্যাকটিক্যাল ক্লাসশেষে ২য় টার্ম পরীক্ষা থাকবে।

– ২য় টার্ম পরীক্ষার পর তৃতীয় ফেজে মার্চের শেষ সপ্তাহ থেকে ৩ সপ্তাহ প্যাথলজি, মাইক্রোবায়লজি, এবং কমুনিটি মেডিসিন বিষয়ে ব্লক পোস্টিং এর ব্যবস্থা করা যেতে পারে, যাতে ছোট গ্রুপে রিভিশন ক্লাসসহ হাতে-কলমে প্র্যাকটিক্যাল শিক্ষাদান করা সম্ভব হবে।

২। সভায় একটি বিকল্প প্রস্তাব আসে, যা হল দ্বিতীয় ফেজ এ প্যাথলজির সাথে ২য় একটিমাত্র বিষয় যেমন- মাইক্রোবায়লজি বা ফার্মাকোলজি রাখা। এতে প্যাথলজির ক্লাসের জন্য পর্যাপ্ত সময় পাওয়া যাবে। এ ক্ষেত্রে প্যাথলজি সহ ২টি বিষয়ের উপর ২য় বৃত্তিমূলক পরীক্ষা অনুষ্ঠিত হবে। তবে কমিটি এটিকে মন্দের ভাল (2nd best option) আখ্যা দিয়ে ১ম প্রস্তাবের উপর গুরুত্ব আরোপ করে।

৩। কমিটির উপরোক্ত সিদ্ধান্ত সম্পর্কে Questionnaire এর মাধ্যমে প্যাথলজি আন্ডারগ্রাজুয়েট কোর্সের সকল শিক্ষকের মতামত অচিরেই সংগ্রহ করা হবে।

৪। একটি সুবিধাজনক সময়ে বিএসএমএমইউ বা ঢাকা মেডিকেল কলেজে প্যাথলজি কারিকুলাম আপডেট সংক্রান্ত অংশীজনের (Stakeholder) ওয়ার্কশপের আয়োজন করা হবে।

আলোচনা শেষে সভায় অংশগ্রহণকারী সম্মানিত সদস্যমন্ডলীকে ধন্যবাদ জানিয়ে চা-চক্রে আপ্যায়নের মাধ্যমে সভাপতি সভার সমাপ্তি ঘোষণা করেন।

অবগতির জন্য প্রেরণঃ বাংলাদেশ একাডেমী অব প্যাথলজির সকল সম্মানিত সদস্য।